দর্জিপাড়ায় সুই-সুতার বিরামহীন যুদ্ধ

প্রচ্ছদ » অর্থনীতি » দর্জিপাড়ায় সুই-সুতার বিরামহীন যুদ্ধ
সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪



---

বিশেষ প্রতিনিধি ॥

ঘনিয়ে আসছে ঈদুল ফিতর। ঈদকে কেন্দ্র করে ব্যস্ততা বেড়েছে দর্জিপাড়ায়। ভোলার লালমোহন উপজেলার দর্জির দোকানগুলোর কারিগররা সবাই ব্যস্ত। কেউ সেলাই, কেউ বোতাম লাগানোয়, কেউ কাপড় কাটায়, আবার কেউবা ইস্ত্রি (আয়রন) করে অর্ডার বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য তৈরি জামা-কাপড় সাজিয়ে রাখছেন। যেন কারোর দম ফেলানোর সময় নেই।

প্রতিদিন সকাল থেকে শুরু করে ভোর রাত পর্যন্ত দর্জিপাড়ায় চলছে কাজ। দর্জিপাড়ার এমন চিত্র দেখলে মনে হবে এ যেন সুই-সুতার বিরামহীন যুদ্ধ। লালমোহন পৌর শহরসহ উপজেলার সব হাট-বাজারেই এখন দর্জি কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার ভীষণ ব্যস্ততা। তাদের এ ব্যস্ততা থাকবে ঈদের দিন সকাল পর্যন্ত।

সরেজমিনে লালমোহন পৌর শহরের কয়েকটি দর্জির দোকান ঘুরে দেখা যায়, ঈদ উপলক্ষ্যে নতুন পোশাক কিনে তৈরির জন্য দর্জির দোকানগুলোতে ভিড় করছেন মানুষজন। মানুষজনের পোশাক তৈরি করতে বিরামহীনভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন দর্জিরা। দর্জিদের এখন লক্ষ্য কেবল অর্ডার অনুযায়ী পোশাক তৈরি করে হস্তান্তর করা। তাইতো ক্লান্তি উপেক্ষা করে নিজেদের কাজে মনযোগী দর্জিরা। দর্জিদের কাছে পুরুষদের চেয়ে নারীদের পোশাক তৈরির অর্ডার সবচেয়ে বেশি।

বর্তমানে দর্জির দোকানগুলোতে প্রতি পিস প্যান্ট ৪৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকায় সেলাই করা হয়, শার্ট ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, পাঞ্জাবি ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা, পায়জামা ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, লেহেঙ্গা ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা, থ্রি-পিস প্রকারভেদে ২৫০ থেকে ৫০০ টাকা, প্রকারভেদে সেলোয়ার-কামিজের মজুরি নেয়া হয় ৮০০ থেকে ১০০০ হাজার টাকা, ব্লাউজ ও পেটিকোট ১৫০ থেকে ২০০ টাকা, বাচ্চাদের পোশাক সেট অনুযায়ী ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা মজুরিতে সেলাই করা হয়।

কর্মব্যস্ততা নিয়ে কথা হয় লালমোহন পৌর শহরের নাফিসা টেইলার্সের কারখানার কয়েকজন কারিগরের সঙ্গে। ওই কারখানায় একজন মাস্টারসহ মোট ৬ জন কারিগর কাজ করেন। যাদের মধ্যে একজন মো. রাসেল। তিনি বলেন, প্রায় নয় বছর ধরে এ পেশার সঙ্গে জড়িত। গত বছরের ঈদের চেয়ে এ বছরের ঈদে কাজের অনেক চাপ। সকাল থেকে ভোর রাত পর্যন্ত কাজ করতে হয়। এতে দৈনিক ৭০০ থেকে ৮০০ টাকার মতো আয় হয়। এই আয় দিয়েই চলে আমার সংসার। তবে বছরের অন্যান্য সময় কাজ কিছুটা কম থাকে। তখন দৈনিক গড়ে পাঁচশত টাকার মতো আয় হয়।

ওই কারখানার আরেক কারিগর মো. হানিফ জানান, বিগত ২২ বছর ধরে এই পেশায় আছি। ঈদ আসলে আমাদের কাজ বাড়ে। এই ঈদেও ব্যাপক কাজ হাতে রয়েছে। এতে করে দৈনিক ৮০০ থেকে ১০০০ হাজার টাকার মতো আয় হয়। এই আয়ের টাকায় স্বামী-স্ত্রীসহ তিন ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে সংসার চালাচ্ছি। এই কাজ করে সবাইকে নিয়ে ভালো আছি।

ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তার বিষয়ে লালমোহন থানার ওসি (তদন্ত) মো. এনায়েত হোসেন বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে সেজন্য আমাদের থানা পুলিশের কয়েকটি টিম নিয়মিত কাজ করছে। বাজারের ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তায় আমরা সচেষ্ট রয়েছি। এরপরও যদি কোথায়ও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে তাহলে তাৎক্ষণিক আমাদেরকে জানানোর জন্য সবার প্রতি অনুরোধ থাকবে।

বাংলাদেশ সময়: ১:০১:০৯   ১১১ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

অর্থনীতি’র আরও খবর


ভোলায় প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনী ও উদ্যোক্তাদের মেলা অনুষ্ঠিত
ভোলায় অনুষ্ঠিত হলো প্রাণী প্রদর্শনী মেলা
চরফ্যাশনে দিনব্যাপী প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনী
বোরহানউদ্দিনে ফুটপাতে ঈদের জমজমাট কেনাকাটা
পথে পথে চাঁদাবাজি, ভোলার তরমুজচাষি ও ব্যবসায়ীরা বিপাকে
ভোলায় ব্যবসায়িক অগ্রগতি পর্যালোচনা সম্মেলনে রূপালী ব্যাংক পিএলসিকে সর্ব শীর্ষে নিয়ে যাবার অঙ্গীকার
ভেজাল মসলা তৈরি: ভোলায় ২ কারখানাকে জরিমানা
ভোলায় বেড়েছে আলু ও কাঁচা মরিচের দাম
ভোলায় নারী উদ্যোক্তাদের তিনদিনের ঈদমেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ঢল
ভোলায় যাত্রা শুরু করেছে দেশীয় ব্র্যান্ড ‘দর্জিবাড়ি’



আর্কাইভ