স্বামীর কথা রাখতে ঝুপড়ি ঘর আঁকড়ে আছেন ছবরজান

প্রচ্ছদ » জেলা » স্বামীর কথা রাখতে ঝুপড়ি ঘর আঁকড়ে আছেন ছবরজান
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪



---

বিশেষ প্রতিনিধি ॥

৮০ বছর বয়সী বৃদ্ধা ছবরজান বিবি। তিনি একাই থাকেন একটি জরাজীর্ণ ঝুপড়ি ঘরে। কোথাও হোগলা পাতা, কোথাও ভাঙাচুরা টিন, কোথাও পলিথিন, আবার কোথাও ছেঁড়া বস্তা দিয়ে ঘরটিতে বেড়া দেওয়া। ঘরের চালায় টিন থাকলেও সেই টিনের ওপরও দেওয়া পলিথিন। এমনকি ঘরের দরজাটিও হোগলা পাতার। তবুও সেই ঘর ছাড়ছেন না বৃদ্ধা ছবরজান বিবি। ঐ ঘর থেকেই শেষ বিদায় নিতে চান তিনি। জরাজীর্ণ ঘরটিই যেন ছবরজানের স্বর্গ।

তিনি ভোলার লালমোহন উপজেলার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের চরলক্ষ্মী এলাকার আলী মিয়া মাতাব্বর বাড়ির মৃত সামছল হকের স্ত্রী। প্রায় পাঁচ বছর আগে মারা যান তার স্বামী। বর্তমানে বৃদ্ধা ছবরজান বিবির ৩ ছেলে ও ৩ মেয়ে রয়েছে। ছেলেরা দিনমজুর। মেয়েরা থাকেন স্বামীর বাড়ি। ছেলেদের ঘরে আশ্রয় নিতে পারলেও তাদের ঘরে যাচ্ছেন না বৃদ্ধা ছবরজান বিবি।

তিনি বলেন, আমার স্বামী মারা যাওয়ার সময় বলে গেছেন এই ঘরেই থাকতে। এই ঘরে থেকেই মৃত্যু পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেছেন তিনি। তাই কষ্ট হলেও ভাঙাচুরা জরাজীর্ণ ঘরটিতেই থাকছি। বৃষ্টি হলে ঘরের ভেতরে পানি পড়ে। তবুও স্বামীর কথা রাখার চেষ্টা করবো। আল্লাহ হায়াৎ শেষ করলে এই ঘরের মধ্যেই মারা যাবো। তবুও মরণ পর্যন্ত স্বামীর রেখে যাওয়া ঘর ছেড়ে কোথাও যাবো না।

---

বৃদ্ধা ছবরজান বিবির ছোট ছেলে আব্দুল খালেক বলেন, আমরা দিনমজুরি করলেও আমাদের মোটামুটি ভালো ঘর রয়েছে। মাকে আমাদের ঘরে আসতে বললেও তিনি আসেন না। বাবা নাকি মৃত্যুর আগে মাকে বলে গেছেন ঐ ঘরে থাকতে। যার জন্য তিনি ঐ ঘর ছেড়ে কোথাও যান না। তবে আমি এবং পরিবারের সদস্যরা তিনবেলা মাকে ঐ ঘরে নিয়ে খাবার দিই। এছাড়া মা বয়স্কভাতা পান। ঐ ভাতার টাকা দিয়ে তিনি প্রয়োজনীয় ওষুধ কেনেন।

ঐ বৃদ্ধার নাতি জীবন বলেন, নানার কথা রাখতে ঝুপড়ি ঘরটিতেই থাকেন নানি। বহুবার তাকে সেখান থেকে মামাদের ঘরে থাকার জন্য বলা হয়েছে। তবে তিনি কোনোভাবেই নানার রেখে যাওয়া ঘর ছাড়ছেন না। তাই মামারা বাধ্য হয়ে সেখানেই নানিকে নিয়মিত খাবার-দাবার দিচ্ছেন। নানার কথার মর্যাদা দিতেই নানি অনেক কষ্ট হওয়ার পরেও ভাঙাচুরা ঘরটিতেই দিন পার করছেন।

কালমা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ছাদেক বলেন, ঐ বৃদ্ধা সরকারিভাবে একটি বয়স্ক ভাতা পাচ্ছেন। এছাড়া শুনেছি স্বামীর কথা রাখতেই বৃদ্ধা ছবরজান বিবি ঝুপড়ি ঘর থেকে কোথাও যান না। তার ছেলেরা মোটামুটি সচ্ছল রয়েছেন। তিনি চাইলে ছেলেদের ঘরে থাকতে পারেন।

লালমোহন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহাগ ঘোষ জানান, এই মুহূর্তে সরকারিভাবে জমি আছে, ঘর নেই প্রকল্পটি বন্ধ রয়েছে। তবে ভবিষ্যতে ঐ প্রকল্পটি চালু হলে তাকে নতুন করে একটি ঘর নির্মাণের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২:১৯:০২   ১০১ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

জেলা’র আরও খবর


ভোলায় ভোটারদের নানান প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রচার- প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা
ভোলার উন্নয়ন ও অগ্রগতির বিবেচনায় নিয়ে মটরসাইকেল ও উড়োজাহাজে ভোট দিবেন
এমন নির্বাচন হবে যা ভোলাবাসী কখনো ভুলবে না: ভোলায় ইসি হাবিব
ভোলায় শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত
ভোলায় মেঘনা নদী থেকে পাঙ্গাস মাছের অবৈধ পোনা শিকারের ৫টি চাই ধ্বংস
২১ তারিখ মটরসাইকেল ও উড়োজাহাজে ভোট দিবেন: চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউনুছ
তজুমদ্দিনে ঢাকাগামী লঞ্চ থেকে ৩শ কেজি পাঙ্গাসের পোনা আটক
ভোলায় ইমাম মুয়াজ্জিনদের সাথে মতবিনিময় সভায় দোয়া চেয়েছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারেফ হোসেন
ভোলায় সাংবাদিকদের নিয়ে এলজিইডির জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত
লালমোহন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: প্রচারনাকালে প্রার্থীর ওপর হামলা, মোটরসাইকেল ভাঙচুর, আহত-৪



আর্কাইভ