মেঘনা-তেঁতুলিয়ায় বাগদার রেণু শিকারের মহোৎসব

প্রচ্ছদ » অর্থনীতি » মেঘনা-তেঁতুলিয়ায় বাগদার রেণু শিকারের মহোৎসব
সোমবার, ১৩ মে ২০২৪



---

বিশেষ প্রতিবেদক ॥

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ভোলার মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে অবাধে চলছে অবৈধ বাগদা ও গলদা চিংড়ির রেণু শিকারের মহোৎসব। শিকারীদের নিষিদ্ধ জালে বাগদা-গলদার রেনুর সঙ্গে উঠে আসছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের রেণুও। এতে করে প্রতিদিনই ধ্বংস হচ্ছে প্রায় এক কোটি বিভিন্ন প্রজাতির মাছের রেণু। মূলত মৎস্য বিভাগের তেমন অভিযান না থাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে শিকারীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ভোলা সদর উপজেলার তুলাতুলি পয়েন্টের মেঘনা নদীতে দলবেঁধে অবাধে অবৈধ বাগদা ও গলদার রেণু শিকারে ব্যস্ত জেলেরা। নিষিদ্ধ মশারি ও নেট বেহুন্দী জাল দিয়ে নদী থেকে তারা শিকার করছেন বাগদা ও গলদার রেণু। আর চিংড়ির রেণুর সঙ্গে ওই জালে উঠে আসছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের রেণুও। শিকারীরা বাগদা ও গলদার রেণু বেছে বেছে পাত্রে রেখে ফেলে দিচ্ছেন অন্যান্য প্রজাতির মাছের রেণুগুলোকে। এতে করে প্রতিদিনই বাগদা ও গলদা রেণুর সঙ্গে ধ্বংস হচ্ছে অন্যান্য প্রজাতির কোটি কোটি মাছের রেণু।

শুধু তুলাতুলি নয়, বোরহানউদ্দিন ও দৌলতখান উপজেলাসহ জেলার সাত উপজেলার মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে প্রতিদিনই বাগদা-গলদা রেণু শিকারের মহোৎসব চলছে।

---

ভোলা সদরের তুলাতুলি মেঘনা নদীতে বাগদা ও গলদা রেণু শিকারী মো. সালাউদ্দিন, মো. ইব্রাহীম ও মো. আলম জানান, তারা মেঘনা নদীতে ইলিশ শিকার করেন। প্রতি বছর এ সিজনে তারা নদীতে বাগদা ও গলদার রেণু শিকার করেন। এটি শিকারের কাজে ছোট মশারি ও নেট বেহুন্দী জাল ব্যবহার করেন। প্রতিদিন তারা একেক জন ৮০০-১০০০ পিস বা তারাও অধিক বাগদা ও গলদার রেণু শিকার করে থাকেন। প্রতি পিস রেণু তারা ব্যাপারীদের কাছে দেড় টাকা করে পিস বিক্রি করে থাকেন। 

একই এলাকার মো. সুমন, মো. মনির ও লাইজু বেগম জানান, তাদের জালে বাগদা ও গলদার রেণুর সঙ্গে অন্যান্য মাছের রেণুও উঠে আসে। তারা বাগদা ও গলদার রেণু বেছে অন্যান্য মাছের রেনু ফেলে দেন।

তারা আরও জানান, রেণুর সিজনে সবাই কম বেশি ব্যাপারীদের কাছ থেকে ১০-৩০ হাজার টাকা দাদন এনেছেন। আর বাগদা ও গলদার এসব রেণু তাদের কাছ থেকে ব্যাপারীরা কিনে নিয়ে বিভিন্ন হাত ঘুরে খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরার পাইকারি আড়তে বেশি দামে বিক্রি করেন।

ভোলা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ কুমার দেব জানান, বছরের এপ্রিল, মে ও জুন মাস নদীতে বাগদা ও গলদা রেণু ছড়িয়ে পড়ে। আর কিছু অসাধু জেলে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নদী থেকে অবৈধভাবে বাগদা ও গলদার রেণু শিকার করেন। তাদের বিরুদ্ধে মৎস্য বিভাগ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দাবি করেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ২:১৪:৪১   ৬৫ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

অর্থনীতি’র আরও খবর


বোরহানউদ্দিনে ৪৮ জেলের মধ্যে বকনা বাছুর বিতরণ
মেঘনা-তেঁতুলিয়ায় বাগদার রেণু শিকারের মহোৎসব
ভোলায় লাজফার্মা মডেল ফার্মেসির উদ্বোধন
ভোলা মহাজনপট্টিতে স্বপ্ন আউটলেটের শাখা উদ্বোধন
লালমোহনে ১২৬ কোটি টাকার বোরো ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা
ভোলার গ্যাস উৎপাদন: কূপ খননে আরও চড়া দাম চায় গাজপ্রম
ভোলায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই
নদীতে মিলছে না কাংখিত ইলিশ, হতাশ জেলেরা
কাঁচের চুড়ি তৈরিতে ব্যস্ত বোরহানউদ্দিনের শ্রমিকরা
দুই মাসের নিষেধাজ্ঞার পর মাছ শিকারে প্রস্তুত জেলেরা



আর্কাইভ