ভোলার কৃতি সন্তান সাফ জয়ের নায়ক আমিনুলকে মনে আছে?

ক্রীড়া প্রতিনিধি ॥
এখন পর্যন্ত আমার দেখা সেরা গোলকিপার। উক্তিটা বাংলাদেশকে প্রথম সাফ জেতানো কোচ জর্জ কোটানের। আর যার কথা বলা হচ্ছে, তিনি হলেন দ্বীপজেলা ভোলার কৃতি সন্তান, বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা গোলকিপার জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক আমিনুল হক। গেম রিড করার ভালো এ্যাবিলিটি ও ভালো পজিশনিং সেন্স তাকে বানিয়ে দিয়েছিলো দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবল ইতিহাসে সেরা গোলকিপার।
আমিনুলকে নিয়ে আরেকজনের একটা উক্তি মনে পড়ে যাচ্ছে, তিনি হলেন মালয়েশিয়ান সাবেক ফুটবলার ও ইএসপিএন স্টার শেব্বি সিং। তিনি বলেছিলেন, সে (আমিনুল) আরো ভালো লিগে খেলার যোগ্য। হয়তো সঠিক প্রশিক্ষণ নিয়ে ইংল্যান্ডেও!
তখন ২০০৪, শেব্বর এই কথাটা যেন সত্যি হয়েছিলো যখন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব নিউক্যাসেল ইউনাইটেড থেকে অফার পেয়েছিলেন আমিনুল। তবে তার প্রিমিয়ার লিগ খেলার স্বপ্ন ভেঙ্গে গিয়েছিলো বাফুফের গাফিলতির কারণে। সঠিক সময়ে ফিফার কাছে ট্রান্সফার বিষয়ক কাগজপত্র দাখিল করতে পারেনি বাফুফে। সৌদির আল হিলাল থেকেও অফার পেয়েছিলেন। তবে সেবারও স্বপ্ন ভেঙে যায় একই কারণে।

---

এই ফাঁকে জানা যাক তার শৈশব: ১৯৮০ সালের ৫ অক্টোবর দ্বীপজেলা ভোলার দৌলতখান উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তবে বেড়ে উঠেন ঢাকার পল্লবীতে। ১৯৯৩ সালে প্রথম পাইওনিয়ার লিগে খেলেন। ১৯৯৫ সালে প্রথম জাতীয় দলে ডাক পেয়েছিলেন আমিনুল। তবে এর চার বছর পর ১৯৯৮ সালে কাতারের বিপক্ষে ফ্রেন্ডলি ম্যাচে অভিষেক হয় তার। ১৯৯৯ ও ২০১০ এসএ গেমসে জিতেছিলেন স্বর্ণপদক।
তবে তার সেরা ম্যাচ ছিলো ২০০৩ সালের সাফ গেমস ফাইনাল। সেবার পেনাল্টি শ্যূট আউটে গড়িয়েছিলো ম্যাচটি। সেখানে দারুণ সব সেভ দিয়ে মালদ্বীপকে হারিয়ে মাতৃভূমিকে জিতিয়েছিলেন প্রথম সাফ ট্রফি। অথচ ম্যাচটিতে তার খেলার কথাই ছিলোনা ব্যাক পেইনের কারণে। তবুও পেইন কিলার নিয়ে খেলেছিলেন পুরো ম্যাচ।
অতঃপর ২০০৫ থেকে ২০১০ পর্যন্ত ছিলেন জাতীয় দলের অধিনায়ক। ২০০৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশীপে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে দলকে নিয়ে গিয়েছিলেন ফাইনালে। তবে সেখানে ভারতের কাছে ২-০ তে হারতে হয়েছিলো। ২০১০ সালে অবসর নেন তরুণদের দলে সুযোগ দিতে। এশিয়ান গেমসে হংকংয়ের বিপক্ষে নিজের শেষ ম্যাচটি খেলেছিলেন আমিনুল।
ক্লাব ক্যারিয়ারে ১৯৯৪-৯৫ সালে ছিলেন মোহামেডানে। ১৯৯৬ সালে খেলেছেন ফরাশগঞ্জ এসসির হয়ে। ১৯৯৭-৯৮-এ ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদে। ১৯৯৯ সালে ঢাকা আবাহনীতে। ২০০০-২০০৪ আবার ফিরেছিলেন মুক্তিযোদ্ধায়। ২০০২ সালে এই ক্লাবের হয়ে এশিয়ান ক্লাব চ্যা¤িপয়নশীপে খেলেছিলেন। ২০০৫-২০০৬ এ ছিলেন ব্রাদার্স ইউনিয়নে। ২০০৭-২০১০ সালে ফিরেছিলেন নিজের প্রথম ক্লাব মোহামেডানে। ২০১০ সালে জাতীয় দল থেকে অবসর নেয়ার পর থেকে ২০১২ পর্যন্ত ছিলেন শেখ জামাল ডিসিতে। ২০১৩-২০১৪-তে আবার ফিরে এসেছিলেন মুক্তিযোদ্ধায়। তার পরে ক্লাব ক্যারিয়ারেও ইতি টানেন আমিনুল।
১৯৯২ সালে ইউরোতে আন্ডারডগ হয়েও চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলো ডেনিসরা। সেই দলের কান্ডারি ছিলেন গোলকিপার পিটার স্মাইকেলও। এরপরে পিটার ম্যানইউতে যোগ দিয়ে নানান কীর্তি গড়ছিলেন, আর এই পিটারই হয়ে উঠেছিলো তরুণ আমিনুলের অনুপ্রেরণা। এখন যদি বলি যে, আমিনুল ছিলেন বাংলার পিটার স্মাইকেল। তাহলেও কথাটা ভুল হবে বলে মনে হয় না! কারণ আমিনুল হক তার সময়ের গ্রেটেস্ট গোলকিপারদের একজন ছিলেন।
আজ (৫ অক্টোবর) ভোলার এই কৃতি সন্তান আমিনুল হকের ৪৩তম জন্মবার্ষিকী। শুভ জন্মদিন আমিনুল হক।


এ বিভাগের আরো খবর...
তজুমদ্দিনের মেঘনায় মুক্তিপণের দাবীতে ১৫ জেলে অপহরণ তজুমদ্দিনের মেঘনায় মুক্তিপণের দাবীতে ১৫ জেলে অপহরণ
ভোলায় খামারিদের পশুর মানবৃদ্ধি করার লক্ষ্যে আদর্শ প্রাণীসেবার সভা অনুষ্ঠিত ভোলায় খামারিদের পশুর মানবৃদ্ধি করার লক্ষ্যে আদর্শ প্রাণীসেবার সভা অনুষ্ঠিত
লালমোহনে নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা লালমোহনে নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা
ভোলায় জেলা পরিষদের উদ্যোগে শিক্ষা বৃত্তি ও গুণী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত ভোলায় জেলা পরিষদের উদ্যোগে শিক্ষা বৃত্তি ও গুণী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
লালমোহনে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে মামলা লালমোহনে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে মামলা
চরফ্যাশনে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত চরফ্যাশনে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত
ভোলায় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতাকে সংবর্ধনা ভোলায় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতাকে সংবর্ধনা
বোরহানউদ্দিনে শীতার্তদের কম্বল বিতরণ বোরহানউদ্দিনে শীতার্তদের কম্বল বিতরণ
ভোলার বাপ্তায় মাদ্রাসা ছাত্রদের মাঝে আর.আর হেল্প লাইনের পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ ভোলার বাপ্তায় মাদ্রাসা ছাত্রদের মাঝে আর.আর হেল্প লাইনের পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ
চরফ্যাশনে জমিজমার বিরোধের জেরধরে এক গৃহবধূ হত্যা ॥ আহত-১ চরফ্যাশনে জমিজমার বিরোধের জেরধরে এক গৃহবধূ হত্যা ॥ আহত-১

ভোলার কৃতি সন্তান সাফ জয়ের নায়ক আমিনুলকে মনে আছে?
(সংবাদটি ভালো লাগলে কিংবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।)
tweet

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)