ভোলায় হাসপাতালে বাড়ছে শীত জনিত রোগীর সংখ্যা

আদিল হোসেন তপু ॥
উপকূলীয় জেলা ভোলার শীতের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ঠান্ডা জনীত রোগীর সংখ্যা। গত কয়েক দিন থেকে বয়ে যাওয়া হিমেল হওয়া সাথে ভারী কুয়াশায় জনজীবন বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে। শীতের তীব্রতা বাড়ার কারণে প্রতিদিন বিভিন্ন বয়সি রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হওয়া শিশু রোগীর সংখ্যাই বেশি।

---

এছাড়াও বহির্বিভাগে প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এমন বৈরী আবহাওয়ায় প্রতিনিয়তো ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে চলছে। শিশু ওয়ার্ডের শয্য সংখ্যা ২৪। অথচ গড়ে ভর্তি থাকছে ৫০-৭০ জন। ফলে এক বেডে ২ থেকে ৩ জন করে রাখতে হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে হঠাৎ রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্টরা।
রোগীর স্বজনদের অভিযোগ হাসপাতালে এসে ঠিকমতো চিকিৎসা ও ঔষুধ পাচ্ছেনা তারা। পাশাপাশি শয্যা সংকটের কারণে ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে মেঝেতে। হাসপাতালে নোংরা পরিবেশের সাথে ঠিকমতো ঔষুধ ও চিকিৎসা পাচ্ছেনা তারা।
শিশু ওয়ার্ডে কর্তব্যরত সিনিয়র স্টাফ নার্স (ইনচার্জ) রোজিনা ইসলাম বলেন, বেশ কয়েকদিন ধরে হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে রোগী বেড়েছে। প্রতিদিনই ছাড়পত্রের তুলনায় নতুন ভর্তি রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এতে করে হাসপাতালে জনবল কম থাকায় ঠিকমতো চিকিৎসা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে, এই দূর সময়ে জনবল বৃদ্ধি করার দাবি জানান তিনি।
অভিভাবকদের শীতের সময়ে নবজাতকের বাড়তি সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে ভোলা সদর হাসপাতাল সিনিয়র কনসালটেন্ট (শিশু বিশেষজ্ঞ) ডা: সালাউদ্দিন জানান, আবহাওয়ার পরিবর্তনের কারণে শিশুদের শীতজনিত রোগের প্রকোপ একটু বৃদ্ধি পায়। এ সময়ে শিশুদের চারপাশে অনেক জীবানু বৃদ্ধি তার মধ্যে  শিশুদের ডায়রিয়া প্রকোপ বেশি দেখা দেয় এ ছাড়াও নিউমোনিয়া তো থাকেই। এই সময়টায় বাচ্চাদের নিউমোনিয়া থেকে বাচাতে হলে ঠান্ডা থেকে দূরে গরম কাপড় পড়িয়ে রাখতে হবে। পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবার খাওয়াতে হবে তাতে করে শিশুদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। আর ডায়েরি থেকে বাচতে হলে ময়লা ও জীবাণু থেকে দূরে থেকে সবসময় সাবান দিয়ে সরিল পরিষ্কার রাখতে হবে। এবং শিশুকে মায়ের বুকের দুধ খাওয়াতে হবে। মায়ের বুকের দুধ নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া প্রতিরোধ করতে সক্ষম হয়।
আর ভোলা সদর হাসপাতাল এর আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা: নিরুপম সরকার জানান, হাসপাতালে শিশু রোগীদের পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ রয়েছে।পাশাপাশি তাদের চিকিৎসা দেওয়া জন্য পর্যাপ্ত মেডিকেল অফিসার ও শিশু বিশেষজ্ঞ রয়েছে। তবে প্রতিদিনের রোগীর তুলনায় শিশু ওয়ার্ডের শয্যা সংকট রয়েছে। বিষয়টি সমাধানের লক্ষে আমাদের উর্ধতন কতৃপক্ষকে জানানো হয়ে আশাকরি অতিদূত  এর নিরসন ঘটবে।
উল্লেখ, গত এক সপ্তাহে ৪ শতাধিক শিশু বিভিন্ন ঠান্ডাজনীত রোগে আক্রান্ত হয়ে ভোলা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে গত ১ মাসে নিউমোনিয়া আক্রান্ত হয়ে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে।


এ বিভাগের আরো খবর...
আ’লীগ ১৪ বছরে বিএনপির উপর কোন অত্যাচার নির্যাতন করেনিঃ তোফায়েল আহমেদ আ’লীগ ১৪ বছরে বিএনপির উপর কোন অত্যাচার নির্যাতন করেনিঃ তোফায়েল আহমেদ
জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি ॥ বিপাকে ভোলার জেলেরা জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি ॥ বিপাকে ভোলার জেলেরা
বোরহানউদ্দিনে বাসের চাপায় পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিহত বোরহানউদ্দিনে বাসের চাপায় পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিহত
চরফ্যাসনের জনতা বাজারে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ্যদের খোজ নিলেন গ্রামীন জন উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক চরফ্যাসনের জনতা বাজারে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ্যদের খোজ নিলেন গ্রামীন জন উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক
রাজপথ দখল করা অত সহজ নয় ॥ তোফায়েল আহমেদ রাজপথ দখল করা অত সহজ নয় ॥ তোফায়েল আহমেদ
ভোলার ঘটনায় অভিযুক্ত পুলিশের গ্রেফতার এবং বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি মির্জা ফখরুলের ভোলার ঘটনায় অভিযুক্ত পুলিশের গ্রেফতার এবং বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি মির্জা ফখরুলের
ভোলায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষ: হাইকোর্টে বিএনপির ৬০ নেতাকর্মীর জামিন ভোলায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষ: হাইকোর্টে বিএনপির ৬০ নেতাকর্মীর জামিন
ভোলায় বৃক্ষমেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত ভোলায় বৃক্ষমেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত
ভোলায় আইনজীবিদের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত ভোলায় আইনজীবিদের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত
মনপুরা পুলিশের রিমান্ড শেষে আদালতে জবানবন্দি দিলেন জলদস্যু মফিজ মনপুরা পুলিশের রিমান্ড শেষে আদালতে জবানবন্দি দিলেন জলদস্যু মফিজ

ভোলায় হাসপাতালে বাড়ছে শীত জনিত রোগীর সংখ্যা
(সংবাদটি ভালো লাগলে কিংবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।)
tweet

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)