ভোলায় স্রোতের তোড়ে ৪ কিলোমিটারজুড়ে ভাঙন

ছোটন সাহা ॥
ভোলার মেঘনা নদীতে স্রোতের তোড়ে ভেঙে পড়ছে পাড়, বিলীন হচ্ছে বিস্তীর্ণ জনপদ। বর্তমানে ভোলা সদরের রাজাপুর ইউনিয়নের জোড়খাল পয়েন্ট থেকে চর মোহাম্মদ আলী পয়েন্ট পর্যন্ত চার কিলোমিটার এলাকাজুড়ে চলছে ভাঙন। ইতোমধ্যে সেখানে সাড়ে ৭’শ মিটার এলাকা বিলীন হয়ে গেছে। ঝুঁকির মুখে রয়েছে দু’টি মসজিদ, দু’টি স্কুলসহ বিভিন্ন স্থাপনা।
পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানিয়েছে- নদীর গতিপথ পরিবর্তন, তীব্র ¯্রােত, উজানের পানি বেড়ে যাওয়া ও ডুবোচরের কারণে ভাঙন বেড়েছে। তবে ভাঙনরোধে জরুরি ভিত্তিতে ৪৮০ মিটার এলাকায় জিও ব্যাগ (বালুভর্তি বিশেষ ব্যাগ) ও টিউব ফেলার চেষ্টা করছেন তারা।

---

এ বিষয়ে ভোলা পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বাংলানিউজকে বলেন, নদীতে ¯্রােত আগের চেয়ে অনেক বেশি। এ কারণে ভাঙনের তীব্রতা বেড়েছে। তবে ভাঙনরোধে জরুরি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। জোড়খাল পয়েন্টে ২০০ মিটার এবং চর মোহাম্মদ আলী পয়েন্টের ২৮০ মিটার এলাকায় জিও ব্যাগ ও টিউব ফেলা হচ্ছে। এ দু’টি পয়েন্টে প্রায় ৭৬ লাখ টাকার কাজ চলছে। পরবর্তীতে চার কিলোমিটার এলাকায় নদীর তীর সংরক্ষণ কাজ শুরু হবে।
সরেজমিনে জোড়খাল পয়েন্টে গিয়ে দেখা যায়, নদীর পাড়ে কয়েকটি শুন্য ভিটা। কয়েকদিন আগেও এসব ভিটায় ঘর ছিল। পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করছিলেন নদী পাড়ের মানুষ। কিন্তু সর্বনাশা মেঘনা যেন সব কেড়ে নিয়েছে তাদের। আশ্রয় হারিয়েছেন তারা। এখন কোথায় আশ্রয় নেবেন- তাও জানা নেই।
ক্ষতিগ্রস্ত রুব্বান ও রওশন বিবি বলেন, আমরা গরীব মানুষ, নতুন ঘর তোলার সামর্থ্য নেই। নদী বসত-ভিটা কেড়ে নিছে, আমরা এখন কোথায় যাবো? আমাদের ঠিকানা নেই।
আ. রশিদ ও আ. হাই বলেন, গত কয়েক দিনের ভাঙনে নদী পাড়ের অনেক ঘর বিলীন হয়ে গেছে। এখন খোলা আকাশের নিচে আছি। আমরা নতুন ঠিকানা চাই। সরকারের কাছে সহায়তার দাবি জানিয়েছেন তারা।
অন্যদিকে, চর মোহাম্মদ আলী পয়েন্টে ভাঙনের মুখে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা। ভাঙনে অন্তত অর্ধশতাধিক ঘর বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়া বসত-ভিটা, ফসলি জমি ও রাস্তাঘাট ভেঙে নিয়ে যাচ্ছে মেঘনা।
ওই এলাকার বাসিন্দা নিরব ভূঁইয়া, নাহিদুল ইসলাম, সেলিম ভূঁইয়া, রানী বেগম ও মাহিনুর জানান, জোয়ারের সময় কম হলেও ভাটার সময়  ভাঙন বেড়ে যায়। এক রাতেই ৪০/৫০ হাত জায়গা নদীতে চলে গেছে। অনেক মানুষ অন্যত্র ঘর সরিয়ে নিয়েছেন। আমরাও ভাঙনের মুখে। নদী আমাদের জমি-বসতঘর কেড়ে নিচ্ছে।
রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) মিজানুর রহমান বলেন, যেভাবে ভাঙন চলছে, তাতে পুরো ইউনিয়ন বিলীন হয়ে যেতে পারে। এমনকি শহর রক্ষা বাঁধও ঝুঁকির মুখে পড়েছে। জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা না নিলে শতাধিক মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়বে।


এ বিভাগের আরো খবর...
ভোলায় মেঘনার এক ইলিশের দাম ৪৩০০ টাকা! ভোলায় মেঘনার এক ইলিশের দাম ৪৩০০ টাকা!
মনপুরায় নিহত দুই জেলের লাশ দাফন, নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার মনপুরায় নিহত দুই জেলের লাশ দাফন, নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার
সীমানা নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষণার দাবি তজুমদ্দিন সোনারচর ইউনিয়নবাসীর সীমানা নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষণার দাবি তজুমদ্দিন সোনারচর ইউনিয়নবাসীর
দৌলতখানে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে জেলের মৃত্যু দৌলতখানে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে জেলের মৃত্যু
ভোলায় পাওনা টাকা চাওয়ায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙচুর, আহত-২ ভোলায় পাওনা টাকা চাওয়ায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙচুর, আহত-২
ভোলায় মেয়র-সচিব ও চেয়ারম্যানদের নিয়ে বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত ভোলায় মেয়র-সচিব ও চেয়ারম্যানদের নিয়ে বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত
ভোলায় বীরশ্রেষ্ঠ মোহাম্মদ মোস্তাফা কামাল ফাউন্ডেশনের সাধারণ সভা ভোলায় বীরশ্রেষ্ঠ মোহাম্মদ মোস্তাফা কামাল ফাউন্ডেশনের সাধারণ সভা
সন্তানকে ফিরে পেতে অসহায় মায়ের সংবাদ সম্মেলন সন্তানকে ফিরে পেতে অসহায় মায়ের সংবাদ সম্মেলন
বাংলাবাজার এলাকায় মেম্বারের দখল বাণিজ্য বাংলাবাজার এলাকায় মেম্বারের দখল বাণিজ্য
মহানবী ও ইসলাম ধর্ম অবমাননাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের দাবিতে ভোলায় বিক্ষোভ সমাবেশ মহানবী ও ইসলাম ধর্ম অবমাননাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের দাবিতে ভোলায় বিক্ষোভ সমাবেশ

ভোলায় স্রোতের তোড়ে ৪ কিলোমিটারজুড়ে ভাঙন
(সংবাদটি ভালো লাগলে কিংবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।)
tweet

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)